ঢাকা   সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯   রাত ৯:০৯ 

সর্বশেষ সংবাদ

অফিসকক্ষে সাব-রেজিস্ট্রারের ওপর হামলা, অভিযোগ ইউএনওর বিরুদ্ধে, প্রতিবাদে সারাদেশে কর্মবিরতি

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীর উপর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে হামলার অভিযোগ ওঠেছে। সাব রেজিস্ট্রার তার নিজ অফিসকক্ষেই হামলার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।
এ নিয়ে রেজিস্ট্রেশন বিভাগের কর্মকর্তাদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। এর প্রতিবাদে দেশের সব সাব রেজিস্ট্রার ও জেলা রেজিস্ট্রার অফিসে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ রেজিস্ট্রেশন সার্ভিস এসোসিয়েশন। সংগঠনের পক্ষ থেকে বিবৃতিতে বলা হয়,১০ জানুয়ারী সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীর এজলাস কক্ষে সরকারি দায়িত্বপালনকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল হায়াত শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করেন। তার মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে তার নির্দেশে কতিপয় দুস্কৃতিকারী হকিস্টিক ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এ ঘটনার বিচার না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে বলে জানানো হয়।
ঘটনা সম্পর্কে জানা যায়, গত মঙ্গলবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। তবে এ নিয়ে দুধরণের বক্তব্য পাওয়া গেছে। সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলী জানান তার ওপর হামলার সঙ্গে ইউএনও আবুল হায়াত জড়িত। ইউএনওর নির্দেশে কিছু লোক তার অফিস কক্ষে গিয়ে দলিল সম্পাদনের সময় হামলা করে। হামলায় তিনি গুরুতর আহত হন। তার মাথায় ১৫-১৬টি সেলাই পড়েছে।
তবে ইউএনও আবুল হায়াতের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীকে একজন দুর্নীতিবাজ হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, তিনি সাব রেজিস্ট্রারের অফিসে গিয়েছিলেন ঠিকই তবে সেটা একজনের পেনসনের বিষয় নিয়ে কথা বলতে। এসময় কথাকাটাকাটি হয়েছে মাত্র। সাব রেজিস্ট্রারই আমাদের হুমকি দিয়েছেন। খারাপ ব্যবহার করেছেন। তার পরেও পরিস্থিতি শান্ত করে চলে এসেছি।
ইউএনও বলেন,‘সাব রেজিস্ট্রারের ব্যবহারের কারণেই তিনি মার খেয়েছেন। এর আগেও তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ছিল। তার দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে মাসিক আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভাতেও উঠেছে। তবে তার সঙ্গে যে আচরণ হয়েছে, সেটি ঠিক করা হয়নি। এর তদন্ত হবে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা রেজিস্ট্রার আফসানা বেগমও,এই ঘটনার সঙ্গে ইউএনও আবুল হায়াত জড়িত। তার ইন্ধনেই সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীর ওপর হামলা হয়েছে। অফিস চলাকালীন সময়ে কার্যালয়ে কর্মরত অবস্থায় একজন সরকারি কর্মচারীর ওপর এই ধরনের হামলা ন্যাক্কারজনক।
আফসানা বেগম বলেন, ‘ঘটনার আধা ঘন্টা আগে ইউএনও দলবল নিয়ে গিয়ে সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীকে শাসিয়ে এসেছিলেন। তাকে মারপিটের হুমকি দিয়ে আসছিলেন। বিষয়টি ইউসুফ আলী আমাকে তাৎক্ষণাৎ ফোনে জানিয়েছিলেন। শাসিয়ে আসার সময় ইউএনও ইউসুফ আলীর ফোনটিও ছিনিয়ে নিয়ে এসেছেন। ওই ফোনটি এখনো ইউএনও তার কাছে রেখেছেন। এসব ঘটনা আমি জেলা প্রশাসক স্যারকে জানিয়েছিলাম। জেলা প্রশাসক বিষয়টি দেখবেন বলেছিলেন। কিন্তু তার পর পরই সাবরেজিস্ট্রারের ওপরে হামলা করা হয়েছে।’
জেলা রেজিস্ট্রার আফসানা বেগম আরও জানান, ইউসুফ আলীকে মারপিট করা হয়েছে শিবগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রার অফিসের সাবেক প্রয়াত এক কর্মচারীর পেনসনের ফাইল পাশ করার ঘটনা নিয়ে। ওই কর্মচারী ২০১৪ সালে অবসর নেন। এরপর ২০১৮ সালে তিনি মারা যান। এখন তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বোন এসে পেনসন দাবি করছেন। কিন্তু ওই স্ত্রীর কোনো কাবিন নামা দেখাতে পারেননি তারা। এ নিয়ে মূলত ফাইলটি ছাড়তে পারছিলেন না সাব রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলী। আর ওই ফাইল ছাড়ার জন্য ইউএনও মঙ্গলবার ইউসুফ আলীর খাস কামারায় গিয়ে তাকে শাসিয়ে আসেন। এসময় ইউসুফের এক কর্মচারীকেও শার্টের কলার ধরে ইউএনও মারপিটের হুমকি দিয়েছিলেন। তার আধা ঘন্টা পরই ঘটে হামলার ঘটনা। কাজেই এর সঙ্গে অন্য কোনো ঘটনার সম্পৃক্ততা নেই। ইউএনও এই ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত।
তবে স্থানীয়রা জানান, শিবগঞ্জ সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের সাবেক এক কর্মচারী অবসরে যাওয়ার পর মারা যান। এরপর তার স্ত্রী প্রতিবন্ধী মেয়ের অনুকূলে পেনসনের টাকা দিতে সুপারিশের জন্য সাব-রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীর কাছে যান। এ কাজের জন্য তাকে অতিরিক্ত টাকাও দিয়েছেন। তবে ১৫ মাস ধরে ঘুরেও কোনো সুরাহা মেলেনি। উল্টো অশালীন আচরণ করেন। শুধু তিনি নন, সেবাপ্রার্থীদের সঙ্গে তিনি এমনটা করেন। এছাড়া দলিল লেখকদের সঙ্গেও অসদাচরণ করেন বলে অভিযোগ আছে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে স্থানীয়রা এমনটা ঘটিয়েছেন।
তারা জানান, গত বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে টানা ১০ দিন দলিলে অতিরিক্ত টাকা আদায়, দলিল লেখকদের কথায় কথায় শোকজ, ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন দিয়ে দলিল রেজিস্ট্রি বন্ধ, দলিল লেখকদের সঙ্গে অসদাচরণসহ জেলা রেজিস্ট্রারের বেঁধে দেয়া নীতিমালার দাবিতে কলম বিরতি পালন করেছিলেন দলিল লেখকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সবচেয়ে আলোচিত