ঢাকা   শুক্রবার, ৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯   রাত ৩:০৫ 

সর্বশেষ সংবাদ

ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের সংশোধন ও পরিমার্জনে উদ্যোগ নিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়

বৃটিশ আমলে প্রণিত ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের সংশোধন ও পরিমার্জন এবং বাংলাভাষায় প্রণয়ন করে যুগোপযোগী করার উদ্যোগ নিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। এ জন্য মন্ত্রণালয়ের একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে।
এই কমিটি ১৮৯৮ সালের ফৌজদারী কার্যবিধি (The Code of Criminal Procedure, 1898) আইনের প্রয়োজনীয় সংশোধন, সংযোজন, পরিমার্জন এবং এতদ্‌সংক্রান্ত সংস্কার ও গবেষণাপূর্বক যুগোপযোগী, আধুনিকায়ন ও বাংলা ভাষায় প্রণয়নের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিব মো. মইনুল কবিরকে চেয়ারপার্সন এবং আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ারকে কো-চেয়ারপার্সন করে নয় সদস্য বিশিষ্ট এই কমিটি করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, অতিরিক্ত সচিব হাফিজ আহমেদ চৌধুরী, যুগ্মসচিব বিকাশ কুমার সাহা ও কাজী আরিফুজ্জামান, উপসচিব শেখ গোলাম মাহবুব, যুগ্মসচিব (চলতি দায়িত্ব) মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান নূর, উপসচিব গাজী কালিমুল্লাহ ও যুগ্মসচিব (চলতি দায়িত্ব) মোঃ মুনিরুজ্জামান।
আইনমন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ড.মো.রেজাউল করিম এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছেন।
এতে বলা হয়,গত ১৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফৌজদারী কার্যবিধির প্রয়োজনীয় সংশোধন, সংযোজন, পরিমার্জন এবং এতদ্‌সংক্রান্ত সংস্কার ও গবেষণাপূর্বক, যুগোপযোগী, আধুনিকায়ন ও বাংলা ভাষায় প্রণয়নের জন্য আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হককে নির্দেশনা প্রদান করেন। এই নির্দেশনার আলোকেই ফৌজদারি কার্যবিধি সংশোধন ও পরিমার্জনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
কমিটির কার্যপরিধি হবে: (ক) ফৌজদারী কার্যবিধির প্রয়োজনীয় সংশোধন, সংযোজন, পরিমার্জন এবং এতদ্- সংক্রান্ত সংস্কার ও গবেষণা এবং উহা যুগোপযোগী ও আধুনিকায়ন বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষাপূর্বক সুপারিশ প্রদান (খ) ফৌজদারী কার্যবিধির বাংলা ভাষায় প্রণয়নের বিষয়ে প্রয়োজনীয় সুপারিশ প্রদান (গ) ফৌজদারী মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে বর্তমানে ফৌজদারী কার্যবিধির প্রয়োগের ক্ষেত্রে কী কী সমস্যার উদ্ভব হচ্ছে, তদ্‌বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষাপূর্বক সুপারিশ প্রদান (ঘ) ফৌজদারী কার্যবিধির এবং এতদ্‌সংক্রান্ত বিশ্বের অন্যান্য দেশের আইন পর্যালোচনাপূর্বক সুপারিশ প্রদান। কমিটি প্রয়োজনে এক বা একাধিক সদস্যকে কমিটিতে কো-অপ্ট করতে পারবে। কমিটি যতদ্রুত সম্ভব আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হকের নিকট উপর্যুক্ত বিষয়ে পর্যালোচনা সংক্রান্ত সুপারিশসহ প্রতিবেদন দাখিল করবে। কমিটি গঠনের বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলে প্রণীত উপর্যুক্ত ফৌজদারী কার্যবিধি দ্বারা বর্তমান চতুর্থ শিল্পবিপ্লব, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, জিন প্রকৌশল ও ন্যানোপ্রযুক্তির এই যুগে সংঘটিত বিভিন্ন অপরাধ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মামলা পরিচালনা করা দুরূহ ও সময় সাপেক্ষ। এ কারণে ফৌজদারী মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি এবং জনগণের আইনি অভিগম্যতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ফৌজদারী কার্যবিধিতে প্রয়োজনীয় সংশোধন, সংযোজন, পরিমার্জন এবং এতদ্‌সংক্রান্ত সংস্কার ও গবেষণাপূর্বক যুগোপযোগী, আধুনিকায়ন ও বাংলা ভাষায় প্রণয়ন করা প্রয়োজন। উল্লেখ্য ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক স্বাধীনতা ঘোষণার অব্যবহিত পূর্বে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানের প্রযোজ্য সকল আইনকে ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল তারিখে জারীকৃত Laws Continuance Enforcement Order দ্বারা একই তারিখে জারীকৃত Proclamation of Independence এর বিধান সাপেক্ষে অব্যাহত রাখা হয়। পরবর্তীতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ১৪৯ অনুচ্ছেদ দ্বারা অব্যাহত থাকা উক্ত আইনগুলোকে হেফাজত করা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণার অব্যবহিত পূর্বে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে প্রচলিত ব্রিটিশ ভারত ও পাকিস্তান আমলে প্রণীত অনেক আইন অদ্যাবধি বিদ্যমান রয়েছে। ১৯৭৩ সালে প্রণীত Bangladesh Laws (Revision and Declaration) Act, 1973 (Act No VIII of 1973) প্রণয়নের মাধ্যমে স্বাধীনতাপূর্ব আইনগুলোকে প্রয়োজনীয় সংশোধন ও অভিযোজনপূর্বক বহাল রাখা হয়েছে। তন্মধ্যে Code of Criminal Procedure, 1898 (Act No. V of 1898) অন্যতম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

8 + twelve =

সবচেয়ে আলোচিত