ঢাকা   সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯   রাত ১০:২১ 

সর্বশেষ সংবাদ

হঠাৎ তারকা হয়ে যাওয়া রাণু মণ্ডল আবার ফিরলেন রেল স্টেশনেই, জুটছে না দুবেলা খাবার

পশ্চিমবঙ্গের রানাঘাট স্টেশেন থেকে উঠে এসে হিমেশ রেশমিয়ার ঝাঁ চকচকে বলিউডি স্টুডিয়োতে পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি। নদিয়ার বোগোপাড়ার বাসিন্দা রানুর জীবনযুদ্ধ সাড়া জাগিয়েছিল গোটা দেশে। মুহূর্তের মধ্যে হয়ে গিয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়া সেনসেশন! রাতারাতি স্টার বনে গিয়েছিলেন রানাঘাট স্টেশনের ভবঘুরে রাণু মন্ডল। তবে কয়েক মাস যেতে না যেতেই তিনি চলে গেলেন আঁধারে। ফিরে গেলেন আবার সেই রানাঘাট স্টেশনেই।

ছবি- ইন্টারনেট
ঠিক যেন বাস্তবের মাটি থেকে আকাশে, আবার আকাশ থেকে বাস্তবের মাটিতে। খোঁজ নিয়ে জানা যাচ্ছে, সেই পুরনো দিনের মতোই এখন রোজ দুবেলা পেট ভরে দুমুঠো খেতেই কালঘাম ছুটছে তাঁর। কার্যত অনাহারেই দিন কাটছে তাঁর। সেই আগের মতোই পথচলতি মানুষ যা দিতেন, সেই খেয়েই যেমন দিন কাটত তাঁর, তেমনই চলছে রাণুর আজকালকার দিন। এখনও তাঁর সম্বল হয়ে দাঁড়িয়ছে পাড়া-প্রতিবেশীদের সাহায্য।
যে সময় রাণুর উত্থান, সেই সময়ই জানা গিয়েছিল, দীর্ঘদিন আগে স্বামীর সঙ্গে কাজের সন্ধানে মুম্বই গিয়েছিলেন রাণু। অভিনেতা ফিরোজ খানের বাড়িতে তিনি কাজও করতেন। সেখানে থাকার সূত্রে হিন্দি বলা এবং শব্দ উচ্চারণে দক্ষতা অর্জন করেন। তার পর নদিয়াতে ফিরে আসার কিছুদিন পর স্বামী চলে যান। বিয়েও হয়ে যায় মেয়েদের। তবে আশার আলো ছিল, মাসি-মেসো একা হয়ে যাওয়া রানুকে নিজেদের বাড়িটি দিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু খাবার সন্ধানে রাণু রোজ হাজির হতে শুরু করেছিলেন রানাঘাট স্টেশনের পাঁচ নম্বর প্ল্যাটফর্মে। ওই প্ল্যাটফর্মে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে গিয়ে অতীন্দ্র নামে এক যুবক নিজের মোবাইল ফোনে রেকর্ড করেন রানুর কণ্ঠে লতার গান ‘এক প্যায়ার কা নাগমা হ্যায়’। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা পোস্ট হতেই ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায় সেই ভিডিও। আর ফিরে তাকাতে হয়নি এই ফুটপাথের গায়িকাকে। সোজা মুম্বই। হিমশে রেশমিয়ার নজরে পড়ে যাওয়া। গান রেকর্ড, রিয়েলিটি শো, আরও কত কী…
রানাঘাট স্টেশনে লতা মঙ্গেশকরের গান গেয়ে রাতারাতি স্টার হয়ে উঠেছিলেন রাণু মন্ডল ৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় রাণু হয়ে উঠেছিলেন ভাইরাল।রানাঘাট স্টেশন থেকে শুরু হয়েছিল তাঁর যাত্রা৷ লতার গান গেয়ে রীতিমত তারকার সম্মান পেয়েছেন রাণু ৷হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে গান গেয়ে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে পৌঁছে গিয়েছিলেন ৷

ছবি- ইন্টারনেট।
রানাঘাট স্টেশনের রাণুর জীবন পাল্টে যায় ৷ সেই সময় তিনি যা করছিলেন, যেমন জামা কাপড় পরা থেকে  গান গাওয়া বা কী কথা বলছিলেন সবকিছু তখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ৷ গত বছর সমস্ত পুজো প্যান্ডেলে তাঁর গাওয়া গান ‘তেরি মেরি কাহানি’ বাজতে শোনা যায় ৷ খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়া সেনসেশন হয়ে উঠেছিলেন তিনি ৷ কিন্তু এখন কোথায় রাণু মন্ডল ?
এখন যেন আবার সবাই তাঁকে ভুলে গিয়েছে ৷ ২০১৯ সালে হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে তিনটি গান রেকর্ড করেছিলেন রাণু মন্ডল ৷ তবে বর্তমানে কেউ তাঁর বিষয়ে কিছুই জানে না ৷ সূত্রের খবর অনুযায়ী, কয়েকদিনের জনপ্রিয়তার পর রাণুর জীবনে ফের যেন নেমে এসেছে অন্ধকার ৷ করোনা ভাইরাসের জেরে এমনিতেই সকলকে আর্থিক সমস্যার মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে ৷ এই মুহূর্তে লতাকন্ঠী রাণুকে মুম্বইয়ে কেউ কাজ দিচ্ছেন না ৷ এর জেরে বেশ সমস্যায় পড়তে হয়েছে তাঁকে ৷
জনপ্রিয়তার পাশাপাশি রাণুকে নিয়ে একাধিকবার বির্তকেরও সৃষ্টি হয়েছে ৷ প্রচারের আলোয় চলে এসে তিনি একাধিক সাক্ষাৎকারে বিভিন্ন অহংকারী কথাবার্তা বলেছেন। বাস্তব জীবনেও যখন লোক তাকে চিনতে পেরে তার সঙ্গে কথা বলার জন্য এগিয়ে গিয়েছে তিনি তাদের সঙ্গে অত্যন্ত দুর্ব্যবহার করেছেন।
এই মুহূর্তে রানাঘাটের এই লতা কন্ঠীর অবস্থা বিশেষ ভাল নয়। পুরনো বাড়ি ছেড়ে নতুন বাড়িতে সিফট করেছিলেন রানু ৷ কিন্তু হাতে কাজ না থাকায় ফের পুরনো জায়গায় ফিরে যেতে হয়েছে রাণুকে ৷ (ভারতীয় পত্রিকা অবলম্বনে)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সবচেয়ে আলোচিত