ঢাকা   রবিবার, ২৮ মে ২০২৩, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০   সকাল ১১:৪৩ 

সর্বশেষ সংবাদ

কলকাতায় আড়াইশো বছর আগের কামান উদ্ধার, পাশেই ছিলো লর্ড ক্লাইভের বাড়ি

কলকাতা শহরের দমদম পৌরসভা এলাকায় মাটি খুঁড়ে বের করা হলো প্রায় আড়াইশো বছর আগের বিশালাকার কামান। এতোদিন ধরে যা অযত্নে পড়ে ছিল মাটিতে আধ-পোঁতা হয়ে। ১৫ দিনের চেষ্টায় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির জমানার সেই কামানকে খুঁড়ে বের করলো কলকাতার দমদম পৌরসভা, ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট এবং সিইএসসি। বুধবার দমদম সেন্ট্রাল জেলের অদূরে যশোর রোডের মোড়ে ওই কামানটিকে মাটির উপরে তোলা হয়। সেখানে হাজির ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম এবং ‘অ্যাডমিনিস্ট্রেটর জেনারেল অ্যান্ড অফিসিয়াল ট্রাস্টি অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল’ বিপ্লব রায়।
বিপ্লব জানান, ১০ ফুট ৮ ইঞ্চি দীর্ঘ কামানটির প্রায় ১ ফুট মাটির উপরে ছিল। বাকি অংশ মাটির তলায়। কামান বিশেষজ্ঞ অমিতাভ কানুন এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশের সহযোগিতায় সেটি উদ্ধার করা হয়। তিনি বলেন, ‘‘ব্রিটিশদের তৈরি কামানটির নকশা করা হয়েছিল ১৭৬৩ সালে। ধরা যেতে পারে ১৭৭০ সালে কামানটি তৈরি করা হয়েছিল।’’ ৬ টন (৬ হাজার কিলোগ্রাম) ওজনের ওই কামানটি ১৮ কিলোগ্রাম ওজনের গোলা ১,২০০ থেকে ১,৫০০ গজ দূরে ছুড়তে সক্ষম ছিল।
ঘটনাস্থল থেকে দমদমের ঐতিহাসিক ক্লাইভ হাউস প্রায় এক কিলোমিটার দূরে। বিশেষজ্ঞদের অনুমান কামানটি যুদ্ধে ব্যবহৃত হয়েছিল। পরবর্তী কালে সম্ভবত যশোর রোড থেকে দমদম সেন্ট্রাল জেলে ঢোকার প্রবেশ দ্বারে সেটি রাখা ছিল। স্থানীয় সূত্রের খবর, কামানের মুখের দিকের অংশ মাটির বাইরে বেরিয়ে থাকায় অনেকেই সেটি জঞ্জাল ফেলার জন্য ব্যবহার করতেন। মাটির তলায় কামানটিকে ঘিরে ছিল নানা কেবলে্‌র তার। তাই সাবধানে খননকার্য চালাতে হয়েছে। ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘‘যেহেতু এই সম্পত্তি আদালতের তাই আদালত যেমন চাইবে তা মেনে আলিপুরে বা অন্যান্য জায়গায় সেগুলি সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।’’ প্রাথমিক ভাবে কামানটিকে কলকাতা হাই কোর্টের ‘জুডিশিয়াল মিউজিয়াম অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার’-এ পাঠানো হতে পারে বলে বিপ্লব জানিয়েছেন।
সরকারি সূত্র জানিয়েছে সত্তরের দশকে টালিগঞ্জ-দমদম মেট্রো রেলের জন্য খনন কার্যের সময়েও মাটির নীচ থেকে কয়েকটি প্রাচীন কামান মিলেছিল। তবে এই প্রথম বার এ ভাবে কোনও প্রাচীন তোপ মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করা হল। বিপ্লব বলেন, ‘‘এটা আমাদের কলকাতার ঐতিহ্য। আমাদের রাজ্যের মুকুটে একটা পালক লাগল। এই প্রথম এমন একটা হেরিটেজ আমরা মাটি খুঁড়ে বের করলাম। কলকাতায় এ রকম অনেকগুলি কামান আছে। আমরা চেষ্টা করছি সেগুলি একে একে উদ্ধার করার।’’আনন্দবাজার পত্রিকার সৌজন্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সবচেয়ে আলোচিত