ঢাকা   শুক্রবার, ৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯   রাত ৩:০২ 

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পর্কের অবনতি-অশান্তি? একটি শব্দেই মিলতে পারে সমাধান, বলছেন মনোবিদরা

যে কোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রেই সব সময়ে মতের মিল হয় না। ছোট হোক বা বড়, প্রিয়জন, বন্ধু, আত্মীয় বা পরিবারের যে কোনো সদস্যের সঙ্গে যে কোনো বিষয় নিয়ে হতে পারে কথা কাটাকাটি, মনোমালিন্য। কারো বক্তব্য আপনার পছন্দ হয়নি, এমন হতেই পারে। রেগে গিয়ে দুটো কথা আপনিও বলে গিতে পারেন। তারপর যেটা হয়, তা হল ইগোর লড়াই। কে আগে ক্ষমা চাইবেন, তা নিয়েও চলতে থাকে মনের মধ্যে দ্বন্দ্ব। এর ফলে কিছু হোক বা না হোক, একটা সুন্দর সম্পর্কের অবনতি ঘটে। সেই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসার উপায় আছে। ছোট্ট একটি ‘সরি’ (Sorry) বললেই হতে পারে সমস্যার সমাধান। এমনটাই বলছেন মনোবিদরা।
১. যে কোনো লড়াই মুহূর্তে শেষ হয়ে যেতে পারে যদি প্রথমেই নিজের ভুলটা স্বীকার করে নেওয়া যায়। একটা ছোট্ট ‘সরি’ মন ভাল করে দিতে পারে। অপর প্রান্তে যিনি রয়েছেন তাঁর কথা মন দিয়ে শুনুন। বোঝার চেষ্টা করুন, আপনার বিপরীতে যিনি রয়েছেন, তিনি কী বলতে চাইছেন।

২. অনেক সময় এমন হয় যে আপনি আপনার ভুল বুঝে গিয়েছেন। কিন্তু রাগের মাথায় ক্ষমাও চাননি। তাহলে উপায়? কিচ্ছু না, ফোনে একটা সরি লিখে পাঠিয়ে দিন তাঁকে। কিংবা, বাড়িতে কোনো কাগজে লিখে রেখে দিন আশেপাশে কোথাও, যেখানে তাঁর নজর যাবে। দেখবেন খুব সহজে সমস্যার সমাধান অনেকটা হয়ে যাবে।

৩. শুধু ক্ষমা চাওয়া নয়, আপনি ভুলটা কেন করেছেন, ব্যাখ্যা দিন তারও। কারণ হতে পারে, আপনি যখন ক্ষমা চাইছেন, তখন অপর প্রান্তে যিনি থাকছেন, তাঁর কাছে বিষয়টা স্পষ্ট নাও হতে পারে। তাই নিজের কাজের কারণ অবশ্যই জানিয়ে দেবেন। যাতে কোনও রকম ভুল ধারণা না থাকে একে অন্যের প্রতি।

৪. ঝগড়া হওয়ার ক্ষেত্রে যখন ক্ষমা চাইছেন তখন কখনওই অতীত টেনে আনবেন না। যে কোনও সমস্যার ক্ষেত্রে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে একে অপরের অতীত তুলে কথা না বলাই ভালো।
৫. সবশেষে বলতেই হয়, যদি কাউকে আঘাত করে থাকেন তাহলে অনেক সময় হতে পারে আপনি ক্ষমা চাইলেও অপরজন সেই আঘাত ভুলতে পারছেন না। তাহলেও ভেঙে পড়বেন না। সময় দিন তাঁকে। যত্ন নিন নিজের সম্পর্ক (Relation) আরও সুন্দর করে । (বিদেশী পত্রিকা অবলম্বনে)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

20 + two =

সবচেয়ে আলোচিত